Melbondhon
এখানে আপনার নাম এবং ইমেলএড্রেস দিয়ে রেজিস্ট্রেশন করুন অথবা নাম এবং পাসওয়ার্ড দিয়ে লগইন করুন

দই খাওয়ার উপকারিতা

Go down

দই খাওয়ার উপকারিতা Empty দই খাওয়ার উপকারিতা

Post by সুপ্রিয় on 2013-02-26, 19:55

দই! ভিটামিনসমৃদ্ধ সুস্বাদু খাবার। সবার কাছেই দই একটি প্রিয় খাবার। ৮ আউন্স পরিমাণ দইয়ে আছে ৮ থেকে ১০ গ্রাম প্রোটিন বা আমিষ। যা তরল খাঁটি দুধের চেয়ে ১৬-২০ ভাগ বেশি। দুধ থেকে দই তৈরি করলে ওই দইয়ে প্রোটিনের পরিমাণ বৃদ্ধি পায়। ক্যালসিয়ামের একটি বড় অংশ পাওয়া যায় দইয়ে।

দই এ চর্বির পরিমাণ কম থাকে। এতে আছে প্রয়োজনীয় খনিজ, ভিটামিন, রিবোফাবিন (বি-২), ভিটামিন বি-১২, ফসফরাস পটাশিয়াম ইত্যাদি। এ ছাড়া নন-ফ্যাট (চর্বিহীন) ও লো-ফ্যাট (কম চর্বি) দই বাজারে কিনতে পাওয়া যায়। ল্যাকটোব্যাসিলাস বুলগেরিকা ও স্ট্রেপ্টোকক্কাস থার্মোফিলাস নামের ব্যাকটেরিয়াগুলো দুধের জমাট বাঁধিয়ে দই তৈরি করে।

ওই সব ব্যাকটেরিয়া মানুষের এন্টিবডি বা রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থার ওপর ইতিবাচক ভূমিকা রাখে। দইয়ের আরো কয়েকটি বিশেষ গুণ আছে। এক পরীক্ষায় দেখা গেছে, ২ জন মহিলার ১ জন এবং ৮ জন পুরুষের মধ্যে ১ জন অস্থি (হাড়) ক্ষয় রোগে আক্রান্ত হয়। ক্যালসিয়ামযুক্ত খাবার খেলে হাড়ের য় কম হয়। এতে হাড়ের সুরা হয়। ওই রোগের ঝুঁকি কমে। ক্যালসিয়াম সমৃদ্ধ খাবার (দই) বয়স্কদের হাড়ের (কাটিলেজ) রোগের প্রভাব কমিয়ে আনে। সেই সঙ্গে ঋতুমতি নারীদের মধ্যেও কমিয়ে আনে হাড়ের ক্ষয় রোগ ।

সুপ্রিয়
আমি আন্তরিক
আমি আন্তরিক

পোষ্ট : 22
রেপুটেশন : 10
নিবন্ধন তারিখ : 23/02/2013

Back to top Go down

দই খাওয়ার উপকারিতা Empty Re: দই খাওয়ার উপকারিতা

Post by সুপ্রিয় on 2013-02-26, 19:56

কোলন ক্যান্সারের ঝুঁকিও কমিয়ে আনতে পারে ক্যালসিয়াম। তাই প্রচুর পরিমাণে দই খেলে কিছু ক্যান্সার বিশেষ করে কোলন ক্যান্সারের ঝুঁকি হ্রাস পায়। আর আমাদের দেহে সর্বদাই ক্যান্সারের উপাদান বিরাজ করে এবং প্রবাহিত হয়। কিন্তু দেহ ক্যান্সার প্রতিরোধ করতে পারে বলে আমরা ক্যান্সারে আক্রান্ত হই না।

মহিলাদের যোনীপথে ছত্রাক সংক্রমণ হয় অনেক ক্ষেত্রে। গবেষক বিজ্ঞানীরা বলেন, নিয়মিত দই খেলে এর ল্যাকটো এসিডো ফিলাস নামক ব্যাকটেরিয়া ছত্রাক সংক্রমণ কমিয়ে দেয়। শিশুদের দই খাওয়ালে ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা অনেকাংশে কমে যায়।

দইয়ে আছে শতকরা ২.৮০ ভাগ প্রোটিন, ৩.২০ ভাগ স্নেহ বা চর্বি, ৪.১০ ভাগ শর্করা বা কার্বোহাইড্রেট, ধাতব লবণ ০.৭০ ভাগ এবং শক্তি আছে ৫৮ কিলোক্যালরি। উপরোক্ত পরিমাণ উপাদান দুধ থেকেও পাওয়া যাবে অর্থাৎ দুধ ও দইয়ে খাদ্যের উপাদান প্রায় সমানই থাকে। দুধ জাতীয় অন্যান্য খাদ্যের উপাদান হলো- ছানাতে শতকরা ১৪ ভাগ প্রোটিন, ১৮ ভাগ চর্বি, ১.৩০ ভাগ কার্বোহাইড্রেট, ১ ভাগ ধাতব লবণ এবং ১০০ গ্রামে ২২৬ কিলোক্যালরি শক্তি পাওয়া যায়।

সুপ্রিয়
আমি আন্তরিক
আমি আন্তরিক

পোষ্ট : 22
রেপুটেশন : 10
নিবন্ধন তারিখ : 23/02/2013

Back to top Go down

Back to top


 
Permissions in this forum:
You cannot reply to topics in this forum