Melbondhon
এখানে আপনার নাম এবং ইমেলএড্রেস দিয়ে রেজিস্ট্রেশন করুন অথবা নাম এবং পাসওয়ার্ড দিয়ে লগইন করুন
widgeo

http://melbondhon.yours.tv
CLOCK
Time in Kolkata:

জঙ্গে সিফফিন-১

Go down

জঙ্গে সিফফিন-১  Empty জঙ্গে সিফফিন-১

Post by imam1979 on 2011-09-10, 20:52

মু’আবিয়ার প্রতি ইমাম আলীর (আঃ) কঠোর বার্তা



আমিরুল মু’মিনিন হযরত আলী ইবনে আবি তালিবের(আঃ) ন্যায়বাদী ঐশী শাসনের
ভিত্তি সুযোগ্য গভর্নরদের নিয়োগ আর অযোগ্যদের অপসারনের মাধ্যমে মযবুত হবার
পর এবার সময় আসে ইমাম(আঃ) দ্বারা শাম রাজ্যের বিষবৃক্ষ মুলোতপাটন করার এবং
ইসলামী সমাজের ওপর থেকে তার ছায়া মুছে ফেলার।এ সিদ্বান্ত তখনই অনিবার্য
হয়ে উঠে যখন হামেদানের গভর্নর জারীর কুফায় আসেন এবং ইমামের(আঃ) সংকল্পের
ব্যাপারে অবগত হয়ে প্রস্তাব করেন যে,তিনি ইমামের(আঃ) বার্তাবাহক হবেন।তিনি
বলেন মুয়াবিয়ার সাথে আমার বন্দ্বুত্ব দীর্ঘ দিনের ।আমি তাকে আপনার
ন্যায়বাদী শাসনকে মেনে নেয়ার আহবান জানাবো,যাতে যতদিন সে আল্লাহর অনুগত
থাকে ততদিন শামে আপনার গভর্নর হিসাবে বলবত থাকে”।
ইমাম(আঃ) শেষ শর্তটির ব্যাপারে নীরব থাকলেন;কিছুই বললেন না।কারন,তিনি
জানতেন যে জারীর এ কাজের যোগ্য নন।মালেক আশতার ইমামের(আঃ) পক্ষ থেকে
জারীরের প্রতিনিধি হওয়ার বিরোধীতা করলেন।বরং তিনি তাকে মুয়াবিয়ার সাথে
সহযোগীতার দায়ে অভিযুক্ত করলেন।কিন্তু ইমাম(আঃ) তাঁর মতের বিপরীতে জারীরকেই
মনোনীত করলেন।(তারিখে ত্বাবারী ৩য় খন্ড,পৃঃ২৩৫;তারিখে ইয়াকুবী,২য়
খন্ড,পৃঃ১৮৪;কামেলঃইবনেছির,৩য়খন্ড,পৃঃ১৪১;শারহে নাহজুল বালাগাঃইবনে আবীল
হাদীদ,৩য় খন্ড,পৃঃ৭৪)।পরবর্তীতে ইমামে(আঃ) নিয়োগ যে সঠিক ছিল তা প্রমানিত
হয়।
ইমাম(আঃ) জারীরকে প্রেরনের সময় তাঁকে বলেন,”তুমি দেখেছ
যে,রাসুলাল্লাহর(সাঃ) সাহাবীগন-যাদের সকলেই দ্বীনদার ও বিচক্ষন,তাঁরা
আমাদের সাথে রয়েছেন।রাসুলাল্লাহ(সাঃ) তোমাকে ইয়েমেনের সৎ মানুষ হিসাবে
আখ্যায়িত করেন।তুমি আমার পত্র নিয়ে মু’য়াবিয়ার কাছে যাও।মুসলমানেরা যে
বিষয়ে একমত হয়েছে সে যদি তা-ই মেনে চলে তা হলে তো কতই না উত্তম!অন্যথায়
তাকে জানিয়ে দেবে যে এ পযন্ত যে নীরবতা ও শান্ত অবস্থা ছিল সেটা আর থাকবে
না(উল্লেখ্য,ইসলামী শাসকের জন্য যুদ্ব শুরুর আগে প্রতিপক্ষকে এ মর্মে সতর্ক
করে দেয়া অপরিহার্য যে,ইতিপুর্বে তাকে যে নিরাপত্তার প্রতিশ্রুতি দেয়া
হয়েছিল তা তুলে নেয়া হল।কোরান মজীদ নিম্নোক্ত আয়াতে এ বিষয়টি ঘোষনা
করেছেঃ”আর কোন সম্প্রদায়ের বিশ্বাসঘাতকতার ব্যাপারে যদি তোমাদের ভয় হয়
তাহলে(শান্তিচুক্তিনামা) তাদের দিকে ছুড়ে ফেলে দাও যাতে (তোমরা ও তারা)
সমান সমান হয়ে যাও”(সুরা আনফালঃ৫৮)।আর তাকে বলে দাও আমি কখনোই তাকে গভর্নর
হওয়ার ব্যাপারে সন্তুষ্ট ছিলাম না আর জনগনও তাকে নিয়োগের ব্যাপারে সন্তুষ্ট
হবে না”(ওয়াক্ক’এ-এ সিফিফিন, পৃঃ২৭,২৮; তারিখে ত্বাবারী ৫ম খন্ড,পৃঃ২৩৫)।
জারীর ইমামের(আঃ) পত্র নিয়ে শামের দিকে রওয়ানা হলেন।তিনি মুয়াবিয়ার নিকট
পৌছার পর বললেন,”তোমার চাচাত ভাই আলীর সথে
মক্কা,মদীনা,বছরা,হেজাজ,ইয়ামান,মিসর,ওমান,বাহরাইন ও ইয়ামামার জনগন বায়াত
হয়েছে।এখন কেবল এই কটি দুর্গ- যেগুলোর মাঝে তুমি রয়েছ,এগুলো ছাড়া আর কেউ
বাকী নেই।পাহাড় থেকে যদি বন্যার ঢল নেমে আসে তাহলে তা সবাইকে ডুবিয়ে
দেবে।আমি তোমাকে মুক্তির দিকে আহবান জানাতে এসেছি এবং এ ব্যক্তির (আলীর)
অনুকুলে বায়াত হবার পথনির্দেশনা প্রদান করছি”(আল-ইমামাহ ওয়াস-সিয়াসাহ,১ম
খন্ড,পৃঃ৮৪৭;নাহজুল বালাগা,৩য় খন্ড,পৃঃ৭৫,ওতাক্ক-এ সিফিফিন,পৃঃ৪৮)।
......চলবে।

imam1979
আমি আন্তরিক
আমি আন্তরিক

পোষ্ট : 32
রেপুটেশন : 6
নিবন্ধন তারিখ : 15/07/2011

Back to top Go down

Back to top


 
Permissions in this forum:
You cannot reply to topics in this forum